খুবির জন্য নরওয়েতে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার সুযোগ বৃদ্ধিতে প্রচেষ্টা নেয়া হবে: রাষ্ট্রদূত সিসেল ব্লেকেন


Khulna University photo

খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি ডিসিপ্লিন আয়োজিত তিনদিনব্যাপী আন্তর্জাতিক সম্মেলনে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগদানকারী বাংলাদেশে নিযুক্ত নরওয়ের রাষ্ট্রদূত সিসেল ব্লেকেন বলেছেন, নরওয়েতে খুলনা  বিশ্ববিদ্যালয়ের নবীন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীদের জন্য উচ্চশিক্ষা ও গবেষণার সুযোগ বৃদ্ধিতে তিনি ব্যাক্তিগতভাবে প্রচেষ্টা চালাবেন। সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে চা বিরতিকালে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি এ কথা বলেন। তিনি বলেন খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে আয়োজিত এ আন্তর্জাতিক সম্মেলনের বিষয় অত্যন্ত সময়োপযোগী হয়েছে। আজ নিয়ে গত দুদিনে যে কয়টি পেপার উপস্থাপন হয়েছে, এ ডলস হাউজ এর বাংলা নাট্যরূপ নিনাদ নাটক মঞ্চস্থ করা হয়েছে এবং তা নিয়ে আলোচনা হয়েছে তাতে আমি বুঝতে পারি ইবসেনকে নিয়ে বাংলাদেশের উচ্চশিক্ষা ও গবেষণায় আগ্রহ বাড়ছে। খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে ইবসেন স্ট্যাডি যে কতো গুরুত্বের সাথে নেয়া হয়েছে এবং এখানকার স্কলার শিক্ষকবৃন্দ গভীরভাবে চর্চা করছেন তা আমি উপলদ্ধি করেছি। আমি তাদের কয়েকটা নিবন্ধ উপাস্থাপন কৌশল ও  ইবসেন সম্পর্কে চমৎকার ধারণা দেখে অভিভুত হয়েছি। সম্মেলনে আরও যেসব পন্ডিতগণ ইবসেনের রচনাবলী, বিশেষত তার ড্রামা নিয়ে নানা তথ্য-উপাত্ত ও বিশ্লেষণধর্মী বক্তব্য রেখেছেন তাতে ইবসেনের চিন্তার বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে। সমাজ, রাজনীতি, নারী অধিকার, মানবাধিকার, আত্মচিন্তার স্বাধীনতা, বাক স্বাধীনতা, মুক্তিসহ নানা বিষয়ে ইবসেনের সুগভীর চিন্তার বাস্তবতা সম্পর্কে আলোকপাত হয়েছে। আমি এ সম্মেলনের ব্যাপারে খুবই আশাবাদী এবং ভবিষ্যতে নরওয়ের সাথে বাংলাদেশের সুম্পর্ক আরও সুদৃঢ় হবে বলে আশারাখি। তিনি খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি ডিসিপ্লিনসহ সংশ্লিষ্ট ক্ষেত্রে উচ্চশিক্ষা ও গবেষণায় শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা যাতে বেশি সুযোগ পায়, স্কলারশিপ বাড়ানো যায় সে ব্যাপারে  ব্যাক্তিগত প্রচেষ্টা চালাবেন বলেও উল্লেখ করেন।
আজ ১১ মার্চ ২০১৭ খ্রি. সম্মেলনের দ্বিতীয় দিনে প্রফেসর ড. আহমেদ আহসানুজ্জামানের সভাপতিত্বে ‘আর্টিস্টস পার্সেপশন অব ইবসেনিয়ন ফ্রিডম পার্টিসিপেটিং আর্টিস্ট’ শীর্ষক বিষয়ের ওপর গোলটেবিল আলোচনায় বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইনস্টিটিউটের অধীন তিনটি ডিসিপ্লিনের শিক্ষকগণ অংশ নেন। তাঁরা এই আন্তর্জাতিক সম্মেলন উপলক্ষে আয়োজিত শিল্পকর্ম প্রর্দশনীতে প্রদর্শীত তাঁদের শিল্পকর্মের বিষয়ে ব্যাখ্যা-বিশ্লেষণ করে বক্তব্য রাখেন। পরে ‘ইবসেন আন্ডার দ্য রাডার-ফ্রি স্পিচ এন্ড সেন্সরশিপ ইন দ্য থিয়েটার’ শীর্ষক বিষয়ে মূল নিবন্ধ উপস্থাপন করেন নরওয়ের ইউনিভার্সিটি অব ওসলো’র সেন্টার ফর ইবসেন স্টাডিজ এর পরিচালক প্রফেসর ফ্রুদা হেলেন্ড। তিনি দেশে দেশে ইবসেনের নাট্য প্রদর্শনী সম্পর্কে আলোকপাত করেন। হংকং ওপেন ইউনিভার্সিটির প্রফেসর কোক-ক্যান ট্যামের সভাপতিত্বে এ সেশনে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রফেসর কাজল বন্দোপাধ্যায়, ওসলো ইউনিভার্সিটির ড. রুথ স্কর এবং খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি ডিসিপ্লিনের সহকারী অধ্যাপক এবিএম মনিরুল হক তাদের স্ব স্ব পেপার উপস্থাপন করেন। দুপুরে ‘ফ্রিডম ইন আর্টিক্যুলেশন অব দ্য সেলফ; এ ডলস হাউস এন্ড মডার্ণ চাইনিজ ড্রামা’ শীর্ষক মূল নিবন্ধ উপস্থাপন করেন হংকং ওপেন ইউনিভার্সিটির প্রফেসর কোক-ক্যান ট্যাম। এ সেশনে সভাপতিত্ব করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক প্রফেসর ফখরুল আলম। এ সময় বাংলাদেশে নিযুক্ত নরওয়ের রাষ্ট্রদূতসহ বিভিন্ন দেশি-বিদেশী শিক্ষক গবেষক, ইংরেজি ডিসিপ্লিন প্রধান প্রফেসর ড. সাবিহা হক, শিক্ষকবৃন্দ ও সিনিয়র শিক্ষার্থীরা এবং চারুকলা ইনস্টিটিউটের অধীন তিনটি ডিসিপ্লিনের শিক্ষকবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন। বিকেলে ‘আন হেয়ার্ড ভয়েসেস এন্ড রিফ্রাকটেড এসেন্স’ শীর্ষক মূল নিবন্ধ উপস্থাপন করেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের অবসরপ্রাপ্ত অধ্যাপক তপতী গুপ্ত। আগামীকাল এ আন্তর্জাতিক সম্মেলন শেষ হবে। শেষ দিনে আরও একটি মূল নিবন্ধ উপস্থাপন করা হবে এবং দুইটি প্যানেল সেশনে বিজ্ঞ শিক্ষক গবেষকবৃন্দ অংশ নিবেন।